বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
মধুখালীতে অসহায় ও দুস্থ মানুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী লোহাগড়ায় সংখ্যালঘুদের চলাচলের রাস্তা অবরুদ্ধ করে রেখেছে একদল ভূমি দস্যু  সন্ত্রাসী  লোহাগড়ায় পুলিশের তান্ডব প্রতিবাদে  এলাকাবাসীর বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন  বাগেরহাটের মংলায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ১৫ কেজি গাঁজাসহ এক নারী মাদক কারবারি আটক নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জে হিলফুল ফুজুল যুব সংঘের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রিক বিতরণ খুলনার রূপসায় সালাম জুট মিলে আগুন, নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ১৬ টি ইউনিট , নড়াইলে ধান ক্ষেতে প্রতিক্ষণ বিমান!  রাউজান থানায় সড়ক দূর্ঘটনায় বাঁশখালীর ২ হাফেজ ইমামের মৃ*ত্যু বাগেরহাটে অসহায় হত দরিদ্র মানুষের হাতে ঈদ উপহার তুলে দিলেন জনতার এমপি শেখ সারহান নাসের তন্ময় গণমাধ্যমকর্মীদের সংগঠন বাংলাদেশ রিপোর্টার্স ইউনিটি’র উদ্যোগে ইফতার ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লক্ষীপুরের চরবংশীতে সন্ত্রাসী মোস্তফা জিরাতী বাহিনীর অত্যাচারে বিধবা হালিমা এখন গৃহহারা।

লক্ষীপুর জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপলোডের সময় : শনিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২২

লক্ষীপুর জেলার রায়পুর উপজেলাধীন ২ নং চরবংশী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড চরবংশী সাকিনের মৃত ফরিদ জিরাতীর বিধবা স্ত্রী ভূক্তভোগী হালিমা বেগম তার ২ টি মেয়ে ও ১ টি ছেলে নিয়া কোন রকমে মানবেতর জীবন যাপন করিতেছে। একই এলাকার মৃত চাঁনমিয়া জিরাতীর ছেলে ভূমি দূস্যু মোস্তফা জিরাতী দীর্ঘদিন যাবত বিধবা হালিমা বেগমকে তাহার মালিকীয় বসত বাড়ী হইতে উচ্ছেদ করার জন্য ষড়যন্ত্র করিয়া আসিতেছে। এবং বিগত ২০/১১/২২ ইং তারিখে ভূমি দূস্যু মোস্তফা জিরাতী সহ তাহার বাহিনীর অন্যান্য সন্ত্রাসীরা বিধবা হালিমা বেগমকে বেদম ভাবে মারধর করে গুরতরভাবে আহত করে এবং হালিমা বেগমের ঘরটি সম্পূর্ণ রুপে ভেঙ্গে ফেলে বিধবা হালিমার পরিবারকে গৃহহারা করে। পরে বিধবা হালিমা বেগমকে গুরতর আহত অবস্হায় রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায় যাহার জরুরী বিভাগের রেজি নং ১২৭৪৬/৮৫৭ তারিখ ২০/১১/২০২২ ইং। ভূক্তভোগী বিধবা হালিমাবেগম উক্ত বিষয়ে সন্ত্রাসী মোস্তফা জিরাতী সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে রায়পর থানায় অভিযোগ দায়ের করে যাহার স্বারক নং ৩৮৭১ তাং ২১/১১/২২ ইং এবং পরে বিগত ২৩/১১/২২ ইং লক্ষীপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট রায়পুর আদালতে একটি মামলা দায়ের করে যাহার সি,আর, নং ৮২৫/২২ইং। উক্ত মামলাটি আদালত রায়পুর থানার ওসিকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার আদেশ প্রদান করেন। বর্তমানে সন্ত্রাসী মোস্তফা জিরাতীর ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। উক্ত বিষয়ে ভূক্তভোগী বিধবা হালিমা বেগম ইতিপূর্বে ও জেলা প্রশাসক পুলিশ সুপার রায়পুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওসি রায়পুর থানার নিকট উক্ত মোস্তফা জিরাতীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। বিধবা হালিমা বেগম এই বিষয়ে পুলিশ প্র্সাশনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে। এই বিষয়ে অভিযুক্ত মোস্তফা জিরাতীকে মোবাইলে জিঙ্গাসা করিলে সে বলে যে অভিযোগটি সঠিক নয়।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..