শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ

লক্ষ্মীপুরে হাজার কোটি টাকার সুপারি বিক্রির সম্ভাবনা।

এ জে এম ইসমাইল হোসেন লক্ষীপুর জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২২

মেঘনাপাড়ের জনপদ লক্ষ্মীপুরে সবচেয়ে বেশি সুপারি উৎপাদন হয়। এখানকার সুপারি দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বিদেশেও রপ্তানি হয়। পূর্ব-পুরুষদের লাগানো গাছ থেকে এবার হাজার কোটি টাকার সুপারি বিক্রি করা যাবে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

রায়পুর ও মান্দারীর একাধিক ব্যবসায়ী জানায়, এবার প্রতিটি সুপারি দেড় থেকে ২ টাকা দিয়ে কিনতে হচ্ছে। প্রতি পোন (৮০টি) সুপারি ১৩০-১৮০ টাকা পর্যন্ত বেচাকেনা হয়। প্রতি কাউন (১৬ পোন) ২৫০০-২৭০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। এবার সুপারি উৎপাদন কম হওয়ায় দাম বেশি। তবে আশানুরূপ বৃষ্টি না হওয়ায় এ বছর সুপারির আকার অনেকটা ছোট। বেশি দামে কিনলেও পরে বিক্রি করতে গেলে দাম কমে যাওয়ার শঙ্কা করছেন তারা।

স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অক্টোবর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ, রায়পুর ও সদর উপজেলার প্রতিটি পাড়া-মহল্লা সুপারি কেনাবেচা হয়। মৌসুমের এসময়ে অস্থায়ী সাপ্তাহিক হাট-বাজারগুলো পুরোদমে জমজমাট থাকে। রায়পুর উপজেলার হায়দরগঞ্জ, খাসেরহাট, মোল্লারহাট, মিতালীবাজার, আলিয়া মাদরাসা মাঠ, রামগঞ্জ উপজেলার মীরগঞ্জ, পানপাড়া, কাঞ্চনপুর, দল্টা, সদর উপজেলার দালালবাজার, রসুলগঞ্জ, চন্দ্রগঞ্জ, মান্দারি, কমলনগর উপজেলার হাজিরহাট, রামগতি উপজেলার আলেকজান্ডারের সবচেয়ে বড় অস্থায়ী সুপারির বাজার বসে। চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা লক্ষ্মীপুরে এসে সুপারি কিনে নানাপ্রান্তে নিয়ে যান। সেখান থেকে আবার বিদেশও পাঠাচ্ছেন আড়তদাররা। সাধারণত সুপারি কাঁচা, ভেজা ও শুকিয়ে বিক্রি করা হয়।

রায়পুর পৌরসভার দক্ষিণ দেনায়েতপুর এলাকার আবদুল লতিফ বলেন, বাপ-দাদারা বাগান রেখে গেছেন। এর নারিকেল-সুপারি বিক্রি করেই আমার সংসার চলে। সুপারির ওপর অনেক মানুষের জীবন-জীবিকা নির্ভর করে।

জেলা কৃষি বিভাগ জানায়, মেঘনা উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরে সাত হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে সুপারি বাগান রয়েছে। বর্তমান বাজারমূল্যে এবার সুপারি থেকে হাজার কোটি টাকা আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। গেল বছর প্রায় ৫৫০ কোটি টাকা আয় করেছে লক্ষ্মীপুরের কৃষক ও ব্যবসায়ীরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ জাকির হোসেন বলেন, সুপারি কেন্দ্রিক লক্ষ্মীপুরে বিশাল অর্থনৈতিক কর্মযজ্ঞ রয়েছে। চলতি মৌসুমে সুপারির দাম বেশি পাওয়া যাচ্ছে। প্রতিটি সুপারি ২ টাকা পর্যন্ত দিয়ে ব্যবসায়ীরা কিনছেন।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..