সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১১:৩৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
গোপালগঞ্জে সাংবাদিক পুত্র হত্যার প্রতিবাদে ও বিচারের দাবীতে মানববন্ধন নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় লোহাগড়ায় বাড়ি-ঘর ভাঙচুর, লুটপাট গুরুতর আহত দু’জনকে ঢাকায় প্রেরণ বাগেরহাটের রামপালে পুলিশের পৃথক অভিযানে দুই মাদক কারবারি আটক ফটিকছড়ি সাংবাদিকদের সংগঠন রিপোটার্স ইউনিটির সভা অনুষ্ঠিত। রামপালে পিক-আপের ধাক্কায় চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী নিহত লোহাগড়া বাজারে দুটি মোবাইলের দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি, মোবাইলসহ অর্ধকোটি টাকার মালামাল চুরি  আনার হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার তিন আসামির আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত এম পি আনারের দেহাংশ উদ্ধারে কসাই জিহাদকে রিমান্ডের আবেদন  মোংলা থানার ওসির অপসারনের দাবীতে বাগেরহাটে মানববন্ধন চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২৩ তম সভাপতির দায়িত্বে জনাব মুহিউদ্দিন আহমদ।

নীলফামারী বৃষ্টির স্বল্পতায় বাড়তি ব্যয়ের কবলে ডিমলার আমন চাষী।

(জামান মৃধা নীলফামারী):-
  • আপলোডের সময় : শুক্রবার, ২৯ জুলাই, ২০২২

আমন ধান রোপণের জন্য সাধারণত বৃষ্টির উপর নির্ভর করতে হয়। তবে এবছর প্রয়োজনীয় পরিমাণ বৃষ্টি না হওয়ায় কৃষকদের সেচ দিয়েই আমন ধান রোপণ করতে হচ্ছে। এতে কৃষি উৎপাদন খরচ বাড়ছে কৃষকদের।

বৃষ্টি নির্ভর আমন ধান রোপণের জন্য খ্যাতনামা প্রবচক খনা বলেছেন, ‘আষাঢ় মাসে বান্ধে আইল তবে খায় বহু শাইল আষাঢ়ে পনের শ্রাবনে পুরো ধান লাগাও যতো পারো।

উল্লেখিত খনার বচনে আষাঢ় মাসে জমির আইল বেঁধে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করে শ্রাবণ মাস পর্যন্ত ধান লাগানোর কথা বলেছেন।

আষাঢ় পেরিয়ে শ্রাবণ মাসের ১৪ দিন অতিবাহিত হলেও আশানরূপ বৃষ্টি না হওয়ায় বৃষ্টি নির্ভর আমন ধান চাষে বিপাকে পড়ছে নীলফামারী ডিমলা উপজেলার কৃষকেরা। বৃষ্টিপাত না হওয়ার কারণে সেচ দিয়ে আমন ধান রোপণে কৃষকের বিঘাপ্রতি প্রায় ৮০০ থেকে ১০০০ টাকা পর্যন্ত বাড়তি খরচ গুনতে হচ্ছে।

উপজেলার ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের ছাতুনামা গ্রামের কৃষক হযরত আলী বলেন, ডিজেল চালিত মেশিনের পানি দিয়ে জমি চাষ করছি। বৃষ্টি না হওয়ায় এবার হামার সর্বনাশ হইল। প্রতি ঘণ্টা হিসেবে জমিতে পানি সেচ দিতে ২০০/২৫০ টাকা খরচ হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ডিমলা উপজেলায় আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার (কৃষি ও সিনপটিক) সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের জুলাই মাসে বৃষ্টি হয়েছিলো ৮৮৯ মিলিমিটার। এ বছর জুলাই মাসে বৃষ্টি হয়েছে মাত্র ১৮০ মিলিমিটার। বৃষ্টি না হওয়ায় পুরো জেলাজুড়ে চলছে তাপদাহ।

ডিমলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর উপজেলায় ২০৪৪৩ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে এ পর্যন্ত ১০ হাজার হেক্টর জমিতে ধান রোপন করা সম্ভব হয়েছে।

উপজেলা বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে স্বচ্ছল কৃষকেরা সেচ পাম্প দিয়ে রোপন শুরু করলেও ক্ষুদ্র, প্রান্তিক ও বর্গাচাষী কৃষকরা বৃষ্টির অপেক্ষায় রোপণে দেরি করছে।

খালিশা চাপানি ইউনিয়নের বাইশ পুকুর গ্রামের কৃষক কোরবান আলী মুন্সীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, বৃষ্টি না হওয়ায় এবার আমন ধানের উৎপাদন খরচ বাড়বে।

তিনি আরও বলেন, আষাঢ় মাস পেরিয়ে শ্রাবণ মাসের প্রায় মাঝামাঝি সময় অথচ বৃষ্টির দেখা নেই। শঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, হয়তো ধান রোপণের পর বৃষ্টি হয়ে হঠাৎ বন্যাও হতে পারে। অসময়ে বন্যা হলে ধানের ক্ষতি হবে।

ডিমলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (কৃষিবিদ) সেকেন্দার আলী বলেন, ধান রোপণে দেরি হলেও ফলনে তেমন প্রভাব পড়বে না। কৃষকদের সেচ দিয়ে রোপণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..