বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৪:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
নড়াইল সদরে দ্বিমুখী ও লোহাগড়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে লড়াই হবে ত্রিমুখী বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জে জীবনের ঝুৃঁকি নিয়ে ভাঙা কাঠের পুল দিয়ে পার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। চা শ্রমিক দিবস,মুল্লুকে চলো আন্দোলনের ১০৩ বছর। নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ ভিত্তিহীন – মাশরাফী কুকুরের দল তাকে একা পেয়ে কামড়ে ছিন্নভিন্ন করে ফেলে বাগেরহাটের শরণখোলায় গলায় ওড়না পেঁচিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীরির আত্মহত্যা সিংড়ায় ভোক্তা-অধিকারের অভিযানে তিন প্রতিষ্ঠান কে জরিমানা  সাতক্ষীরার তালায় ট্রাক উল্টে ২ শ্রমিক নিহত আহত ১১   বাগেরহাটের রামপালে লায়ন ড.শেখ ফরিদুল ইসলামের উদ্যোগে চোখের ছানি অপারেশন ও লেন্স সংযোজন ৫০০ রোগী বাছাই লোহাগড়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী কে এম ফয়জুল হক রোমের নির্বাচনী অফিস ভাংচুর ও পোষ্টার ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ 

বরুড়ায় খাল খনন ও খাস সম্পত্তি উদ্ধারের দাবী সাধারণ জনগনের

মোঃখোরশেদ আলম বরুড়া কুমিল্লা
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ১৫ মার্চ, ২০২৩

সাম্প্রতিককালে প্রাকৃতির সুন্দর্য্যর গ্রামগঞ্জের নদনদী হাওর বিলের ন্যায়, উপজেলা ব্যাপী বিভিন্ন ইউনিয়নের খালবিল। বরুড়া উপজেলাটি ৯৩ বর্গমাইলের মাঝে ১ টি পৌরসভা ১৫ টি ইউনিয়নে ৩৪০ টি গ্রামের চার পাশেই জনস্বার্থের জন্য বিভিন্ন দূর্যোগে পানি নিস্কাসনের সুব্যবস্থার জন্য তৈরী হয়েছিল উক্ত খাল। লক্ষ্য করলে দেখা যায় বর্তমানে বরুড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের উপর দিয়ে বহে যাওয়া খাল গুলো দখলের উৎসবে পরিনত হয়ে খাল বিলুপ্ত হতে চলেছে।

অপর দিকে বরুড়া পৌরসভা কেন্দ্রীক কলেজ রোড পাটবাজার সংলগ্নে ব্রিজটির দক্ষিন অংশে খাস খতিয়ান মূলে ৩৪৪ দাগ ও ব্রিজটির উত্তর দিক হওয়া খালটিতে ১ নং খাস খতিয়ানের সাবেক ১২ দাগ ছিলো উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা নৌকায় বিড় হওয়া খেয়াঘাটটি। আজ যেনো এক ময়লার আবর্জনার নগরী এবং দখলদারীদের সুবিদা ভোগের কারনে দিন দিন ভরাট হয়ে আসছে সেই অবিস্মরণীয় নৌকার ঘাটটি। লক্ষ্যকরলে পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৪ দশক ধরে খাস খতিয়ানের ২৬১ নং দাগের খালটি আজ বরুড়া বাজারের নতুন রোড হিসাবে পরিচিত।

ঐতিহ্যবাহী বিশাল আকারের ত্রিভুজ এই খালটি বাজারের মুল সড়ক হয়ে মালিবাড়ি পোল থেকে পশ্চিমে এবং পৌরসভা অফিস, টিএনটি অফিস ফায়ার সার্ভিসের পিছনের সাইট গেসে, ১ নং খাস খতিয়ানের সাবেক ১৪ দাগের পুরানকাদবা মৌজা পর্যান্ত এই খালটি দীর্ঘ স্মৃতি থাকলেও আজ বিলপ্তর ইঙ্গিত দিয়ে যাচ্ছে আগামি ১০ বছরের পর খালের রুপের অস্থিত্ব খুজে পাওয়া যাবেনা। কারন অবহেলা আর অনাচারির পরিচর্চার দখলে খাল হারিয়ে যাচ্ছে।

তার ধারাবাহিতায় প্রতি বছরের বর্ষায় গুরিগুরি বৃষ্টিতে ও নগরবাসী পোহাতে হয় পানি বন্ধি জীবন। তাই অচিরেই উল্যাখযোগ্য বিলুপ্তিকৃত খাল খনন ও উদ্ধারে সরকারের এগিয়ে আশা অতিব জরুরী বলে দাবী করেন এলাকার সাধারণ জনগন।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..