মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৩:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
মানিকগঞ্জের কালীগঙ্গা নদীতে সামিয়া ইসলাম স্কুল ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার মুরাদনগরে নব-নির্বাচিত দুই সংসদ সদস্যকে সংবর্ধনা নড়াইলে ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় কিশোরকে কুপিয়ে হত্যা, দুই বন্ধু আহত সাতক্ষীরা কিন্ডার গার্টেনে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত মর্গের মেঝেতে পড়ে থাকা মৃত শিশুটির পরিচয় মিলেছে। ব্রেকিং নিউজ-৪০ মরদেহ হস্তান্তর, ডিএনএ টেস্ট করা হবে ৩ জনের পিপিএম (রাষ্ট্রপতি) পদক পেলেন খুলনার সন্তান পুলিশ পরিদর্শক মনিরুজ্জামান। লোহাগড়ায় সৎ মায়ের হাতে ৩ বছরের শিশু খুন রাষ্ট্রপতি পদক পেলেন সিলেট জেলার পুলিশ সুপার’’ রামপালে স্থানীয় সরকার দিবস উদযাপন 

গ্রামের মানুষের আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ

দিনাজপুর প্রতিনিধি:
  • আপলোডের সময় : শনিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২৩
সারাদেশে ঠান্ডার প্রভাব বেশি পরে উত্তরের জনপদ দিনাজপুরের খানসামায়। দিনের বেলায় একটু রোদ থাকলেও বিকেল হওয়ার সাথে সাথে হিমেল হাওয়ায় বদলে যায় দৃশ্যপট।
উপজেলা জুড়ে গতবারের চেয়ে এবার শীতের তীব্রতা অনেক বেশি। সকালে হেড লাইট জ্বালিয়ে চলছে যানবাহন। শীতের সময় সকাল ও বিকেলে ঘন কুয়াশার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে হিমেল হাওয়া। ঘন কুয়াশার কারনে চলাচলে ঘটছে বিঘ্নতা। সন্ধ্যার পরে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে দেখা মিলছে শীতের পোশাক পরিহিত মানুষদের। কোথাও দেখা যাচ্ছে ভ্রাম্যমাণ শীতকালীন গরম পোশাকের দোকান। শীতের আগমনে শীতকালীন পিঠাপুলির দোকান ভিড় জমাচ্ছে সাধারণ মানুষ। কিছুটা উষ্ণতার আসায় চায়ের দোকানে ভিড় করছে মধ্যে বয়স্ক।
প্রত্যন্ত অঞ্চল হওয়ায় শীতের পোশাকের আকুতি জানান কয়েকজন বয়োবৃদ্ধারা। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের বয়স্ক ব্যক্তিদের সকালে খর দিয়ে; আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের দৃশ্য ছিল চোখে পড়ার মতো। একসাথে বসে গল্প আড্ডায় আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করছে অনেকে।
চাঁদর মুরি দিয়ে কাঁপতে কাঁপতে আব্দুল ছাদেক বলেন, “বাবারে যে এনা চলাচল করতে পাচ্ছুনু শীত আসাতে তাও বন্ধ হয়ে গেছে। শীতের কারণে কোথাও যাবার পাচ্ছোনা। সকালে আর বিকালে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করো।  রাইতোত অনেক গুলো ক্যাথা গায়ে দেও তারপরও কেন জানি হাঁটু কাঁপা-কাঁপি করে।”
চায়ের চুমুক দিতে দিতে সবুজ বলেন, মামুরে গ্রামে যে ঠান্ডা। ঢাকায় থাকাকালীন এত ঠান্ডা পাই নাই। রাতে এখন যে হারে শীত পরে, তাতে মনে হচ্ছে এবার শীতে সাধারণ মানুষের হাটু কাঁপবে।
গোবিন্দপুর এলাকার আমু বলেন, আমাদের এলাকায় যে ঠান্ডা তাই সন্ধ্যা হলেই বাড়ি থেকে সুয়েটার পরে বের হই। সন্ধ্যাবেলা থেকেই যে ঠান্ডা লাগে। সেই সাথে কুয়াশা আর বাতাস তো আছেই।
এ বিষয়ে জুথি আক্তার বলেন, আমাদের এলাকায় প্রচন্ড শীত, আগে এ রকম ঠান্ডা অনুভব করিনি। সেই সঙ্গে ঠান্ডার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কুয়াশা পড়ছে প্রচুর।
জেলা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, বৃহস্পতিবার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় বাতাসে আর্দ্রতা ছিল ৯৫ ভাগ। চলতি সপ্তাহে জেলায় স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হতে পারে এ ছাড়া জানুয়ারি মাসে এই জেলার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..