রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১:২১ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
গোপালগঞ্জে সাংবাদিক পুত্র হত্যার প্রতিবাদে ও বিচারের দাবীতে মানববন্ধন নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় লোহাগড়ায় বাড়ি-ঘর ভাঙচুর, লুটপাট গুরুতর আহত দু’জনকে ঢাকায় প্রেরণ বাগেরহাটের রামপালে পুলিশের পৃথক অভিযানে দুই মাদক কারবারি আটক ফটিকছড়ি সাংবাদিকদের সংগঠন রিপোটার্স ইউনিটির সভা অনুষ্ঠিত। রামপালে পিক-আপের ধাক্কায় চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী নিহত লোহাগড়া বাজারে দুটি মোবাইলের দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি, মোবাইলসহ অর্ধকোটি টাকার মালামাল চুরি  আনার হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার তিন আসামির আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত এম পি আনারের দেহাংশ উদ্ধারে কসাই জিহাদকে রিমান্ডের আবেদন  মোংলা থানার ওসির অপসারনের দাবীতে বাগেরহাটে মানববন্ধন চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২৩ তম সভাপতির দায়িত্বে জনাব মুহিউদ্দিন আহমদ।

ডিমলায় প্যারাগন কোম্পানির দূষিত বর্জ্যের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ এলাকার হাজারো মানুষ।

জামান মৃধা, নীলফামারী প্রতিনিধি):
  • আপলোডের সময় : সোমবার, ২৩ মে, ২০২২

নীলফামারী
প্যারাগন কোম্পানির জৈবসার কারখানার দূষিত বর্জ্যের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন নীলফামারী ডিমলা উপজেলার ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের ছাতুনামা (কেল্লাপাড়া) গ্রামের হাজারো বাসিন্দা। দুই বছরেরও অধিক সময় ধরে এ ধরনের সমস্যায় ভুগছেন এলাকার মানুষজন। একদিকে হাজারো অভাব-অনটন ও তিস্তা নদী ভাঙ্গনের আতঙ্ক, অপরদিকে প্যারাগন কোম্পানির জৈবসার কারখানার দূষিত বর্জ্যের দুর্গন্ধ এ যেন মরার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইতিপূর্বে এ ব্যাপারে প্যারাগন কোম্পানি কর্তৃপক্ষকে বলে ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এবং এলাকাবাসীর মানববন্ধন ছাড়াও উপজেলা প্রশাসনকে অবহিত করেও কোনো ফল পাননি বলে ক্ষুব্দ এলাকাবাসীর অভিযোগ।

সরজমিন ঘুরে জানা গেছে, ডিমলা উপজেলার ছাতুনামা (কেল্লপাড়া) গ্রামে। কেল্লপাড়া এলাকায় কয়েক হাজারেরও অধিক বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ বসবাস করে আসছে। তারা অধিকাংশই হতদরিদ্র ও নদী ভাঙ্গা পরিবার। শিক্ষা ও সচেতনতার অভাব রয়েছে গ্রামটির মানুষজনের মাঝে। তাই কেউ অন্যায় ও বৈষম্যমূলক আচরণ করলেও প্রতিবাদ করার শক্তি ও সামর্থ্য নেই কারো মধ্যে। জৈবসার কারখানার চারপাশের এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দূষিত বর্জ্যের দুর্গন্ধে মানুষ তো দূরে থাক যে কোন প্রাণীর বসবাস অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এছাড়া জৈবসার তৈরি করার উপাদান গুলো যত্রতত্র ফেলার কারণে সারা ছাতুনামা (কেল্লাপাড়া) এলাকায় দলে দলে দূষিত বর্জ্যে পড়া মাছি ভাতের হাঁড়িতে, খাবার প্লেটে, পানি পান করার গ্লাসে লেগে থাকে।

এদিকে, প্যারাগন কোম্পানির দুষিত বর্জ্য নিষ্কাশনে তেমন কোন ব্যবস্থা না থাকায় মানুষের ভোগান্তি আরো বেড়েছে। বিভিন্ন এলাকা থেকে এই কারখানায় নিয়ে আসা হয় বয়লার মুরগীর পায়খানা (বিষ্ঠা), গরুর, গোবর খামারের প্রয়োজনীয় খাদ্য, রাইচ মিলের ছাঁই (কয়লা) এই সব উপকরণ পরিবেশ দূষণে মারাত্মক প্রভাব ফেলছে। দূষণ হচ্ছে বায়ু। আর এ বায়ু দূষণের কারণে বছরের পর বছর অত্র এলাকার বাসিন্দারা বিভিন্ন সময়ে পেটের পীড়ায় ভুগছে। কেল্লপাড়া গ্রামে রয়েছে একাধিক মসজিদ

মসজিদ ও প্রাথমিক বিদ্যালয় কোম্পানির সামনের রাস্তা দিয়ে মুসল্লি/ছাত্র-ছাত্রীদের আসা-যাওয়া করতে হয়। আর আসা-যাওয়ার সময় দুর্ভোগের শিকার হয় মারাত্মক দুর্গন্ধের। একাধিক অভিযোগ রয়েছে মসজিদের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিসহ ছাত্র-ছাত্রী এবং গ্রামবাসীর।

ছাতুনামা (কেল্লাপাড়া) গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা আব্দুল জব্বার বলেন, কোম্পানির মুরগীর পায়খানা (বিষ্ঠা) ও বিভিন্ন কেমিকেল জাতীয় দ্রব্য যত্রতত্র পড়ে থাকায় পচে মারাত্মক দুর্গন্ধের সৃষ্টি করে। বিশেষ করে প্রখর রোদের সময় দুর্গন্ধ বেশি ছড়িয়ে পড়ে। এলাকার ভুক্তভোগী মহল এ ব্যাপারে কোম্পানি কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার বলেও কোনো সুফল পাননি। কোম্পানির এ বর্জ্য যাতে অচিরেই স্থায়ীভাবে বন্ধ করা হয় এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

কেল্লাপাড়া গ্রামের আরেক বাসিন্দা বানেছা বলেন, বিষ্ঠার দুর্গন্ধে থাকা যায় না অসহনীয় যন্ত্রণা নিয়ে বসবাস করতে হচ্ছে এখানে। রোদ অথবা বৃষ্টিতে বাতাসে দুর্গন্ধ আরও বেশি ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

একই গ্রামের এলিজা বেগম বলেন, গন্ধে বমি আসে। তৃপ্তি নিয়ে খাওয়া-দাওয়া করা যায় না। কল্পনা আক্তার বলেন, গন্ধে ঘুমাতেও কষ্ট হয়। সবচেয়ে সমস্যার সম্মুখীন হন শিশু ও বৃদ্ধরা।

প্যারাগন এগ্রো দু”য়ের ব্যাবস্হাপক সারোয়ার হোসেন (সোহাগ) বলেন, আমরা গোবর, ছাঁই ও মুরগীর বিষ্ঠা নিয়ে কাজ করি একটু তো গন্ধ থাকাটাই স্বাভাবিক। জৈবসার উৎপাদন করে দেশকে সহযোগিতা করছি। জৈবসার কৃষি জমিতে পরীক্ষামূলক ভাবে প্রয়োগ করেছি, সফলতাও পেয়েছি। সরকার রেজিষ্ট্রেশন দিয়েছে আমাদের প্রতিষ্ঠানকে।

উপজেলা নির্বাহি অফিসার বেলেয়েত হোসেন বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান যদি পরিবেশ দূষণে জরিত থাকে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এবিষয়ে নীলফামারী জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক কমল কুমার বর্মন বলেন, প্যারাগন এগ্রো লিমিটেড জৈবসার তৈরি করতে গিয়ে পরিবেশ দূষণ করে থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..