শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫৫ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
সাতক্ষীরা কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগ ও মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলা। চবিতে চলছে হল সিলগালা। নড়াইলে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীর মৃত্যু  নড়াইলে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৭   সিংড়ায় মাসব্যাপী চলনবিল বৃক্ষরোপণ উৎসবে বিনামূল্যে গাছের চারা বিতরণ পুরাতন সাতক্ষীরায় জমিজমা বিরোধে ৪জনকে পিটিয়ে আহত কোটা সংস্কারের দাবিতে বঙ্গভবনের স্মারকলিপি দিলেন শিক্ষার্থীরা যারা না জেনে সমালোচনা করেন, তারা মানসিক রোগী: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিশু গৃহকর্মীকে  নির্যাতনের ঘটনায় দম্পতি গ্রেফতার। সাভারে চুরির অপবাদ দিয়ে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক দুই

নড়াইলে মুক্তিপণের ১০ লাখ টাকা না পেয়ে শিশু হত্যা আটক ২,

স্টাফ রিপোর্টার নড়াইলঃ
  • আপলোডের সময় : মঙ্গলবার, ১৫ মার্চ, ২০২২

নড়াইলে অপহরণকারীদের দাবি করা টাকা না দেওয়ায় শিশু আরাফাতকে (১২) হত্যা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৫ মার্চ ) সকালে বোড়ামারা দক্ষিণপাড়ার জয়নাল মোল্যার বাগান থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার হয়। নিহত শিশু বোড়ামার গ্রামের ওবাইদুর শিকদারের ছেলে। সে পেড়লী দাখিল মাদরাসার পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র।

এ ঘটনায় আরাফাতের প্রতিবেশী সাহিদুল মোল্যার ছেলে মিলন মোল্যা (১৮) ও তৌহিদুল মোল্যার ছেলে নাবিল মোল্যাকে (১৫) অপহরণকারী সন্দেহে আটক করেছে পিবিআই। এ ছাড়া জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নাবিল মোল্যার বাবা তহিদ মোল্যা ও মা ফাতেমাকে আটক রাখা হয়েছে। মর্মান্তিক এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

পারিবার সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার (১২ মার্চ)সকালে নড়াইল সদর উপজেলার মাইজপাড়া ইউনিয়নের বোড়ামারা গ্রাম থেকে আরাফাত নিখোঁজ হয়। পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজির পরও তার সন্ধান না পাওয়ায় রাতে নড়াইল সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি করে।

এরপর রবিবার (১৩ মার্চ) সকালে একটি নম্বর থেকে মুক্তিপণের জন্য আরাফাতের পরিবারের কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। যে মোবাইল থেকে অপহারণকারীরা মুক্তিপণ দাবি করেছিল, সেই নাম্বার ট্র্যাকিং করে সোমবার রাতে অপহারণকারীদের সন্ধান পায় পিবিআই। তাদের দুইজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদে লাশের সন্ধান পায় পুলিশ। শনিবার ভোর ৪টার দিকে আরাফাতের বাড়ির পাশে জয়নাল মোল্যার বাগানে আরাফাতের গলিত লাশ উদ্ধার করে।

শিশু আরাফাতের বাবা ওবাইদুর শিকদার বলেন, অপহরণকারীরা ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছিল। দাবীকৃত টাকা না দেওয়ায় আমার শিশুপুত্রকে হত্যা করা হয়েছে।

নড়াইল সদর থানার ওসি মো. শওকত কবীর জানান, আমাদের সহযোগিতায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন উদ্ধারকাজ পরিচালনা করে। এ ঘটনায় অপহরণ করে হত্যা মামলা হচ্ছে।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন ইন্সপেক্টর শামিম জানান, আসামিদের দেওয়া তথ্য মতে শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..