মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৮:২২ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
সাতক্ষীরা কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগ ও মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলা। চবিতে চলছে হল সিলগালা। নড়াইলে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীর মৃত্যু  নড়াইলে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৭   সিংড়ায় মাসব্যাপী চলনবিল বৃক্ষরোপণ উৎসবে বিনামূল্যে গাছের চারা বিতরণ পুরাতন সাতক্ষীরায় জমিজমা বিরোধে ৪জনকে পিটিয়ে আহত কোটা সংস্কারের দাবিতে বঙ্গভবনের স্মারকলিপি দিলেন শিক্ষার্থীরা যারা না জেনে সমালোচনা করেন, তারা মানসিক রোগী: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিশু গৃহকর্মীকে  নির্যাতনের ঘটনায় দম্পতি গ্রেফতার। সাভারে চুরির অপবাদ দিয়ে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক দুই

চট্টগ্রাম আনোয়ারায় ইউএনওর দোকান প্রদান।

এম.এ ইসলাম সানি,আনোয়ারা-কর্ণফুলী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ
  • আপলোডের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২২

আনোয়ারা উপজেলার পীরখাইন গ্রামের সরওয়ার জামান হিরো দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হওয়ায় অর্থ উপার্জন করতে পারেনা। যার ফলে স্ত্রী সহ তিন ছেলে এক মেয়ে নিয়ে সংসার চালাতে সমস্যা হচ্ছে। এছাড়া গুজরা গ্রামের মিনু শ্রী দাশের স্বামী মারা যাওয়ায় অর্থ উপার্জন বন্ধ হয়ে যায়। অন্যদিকে রায়পুর খোর্দ গহিরা গ্রামের মোঃ তৈয়ব আলীও দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হওয়ায় অর্থ উপার্জন করতে পারেনা।

যার ফলে তাদের সংসার চালাতেও একই অবস্থা। এমন অসহায় তিন পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ জুবায়ের আহমেদ। উপজেলার চাতরী চৌমুহনী বাজারে তাদের তিনজনকে তিনটি দোকান করে দেন তিনি। বুধবার (১২ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ে তাদের কাছে দোকানগুলো হস্তান্তর করেন।

এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দেওয়া দোকান পেয়ে আবেগাপ্লুত উপকারভোগীরা।

উপকারভোগী মোঃ তৈয়ব আলী বলেন, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হওয়ায় অর্থ উপার্জন করতে পারিনা। অর্থের অভাবে চলেনা সংসার। এজন্য সাহায্য সহযোগিতার জন্য আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)’র কাছে আসি। পরে তিনি আমাকে একটা দোকান করে দেই। এটির ভাড়া থেকে আমার সংসার সুন্দর ভাবে চলবে। সারাজীবন ইউএনও’র প্রতি কৃতজ্ঞ থাকব৷

আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ জুবায়ের আহমেদ বলেন, দুইজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ও একজন স্বামীহারা মহিলা আমার কাছে বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতা চাইতে মাঝে মাঝে আসে। সামন্য সহযোগিতায় তাদের কিছুই হবে না এটাই চিন্তা করে তিনজনকে তিনটি দোকান করে দেওয়ার উদ্যোগ নিই। সেই দোকান নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তারা দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ও মহিলা হওয়ায় দোকানগুলো ভাড়া দিয়ে দিছি। সেই ভাড়ার টাকা দিয়ে সুন্দরভাবে তাদের সংসার চলবে বলে আশা করি। আজ ছয়মাসের অগ্রিম ভাড়া তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..