বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সাতক্ষীরা কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগ ও মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলা। চবিতে চলছে হল সিলগালা। নড়াইলে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীর মৃত্যু  নড়াইলে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৭   সিংড়ায় মাসব্যাপী চলনবিল বৃক্ষরোপণ উৎসবে বিনামূল্যে গাছের চারা বিতরণ পুরাতন সাতক্ষীরায় জমিজমা বিরোধে ৪জনকে পিটিয়ে আহত কোটা সংস্কারের দাবিতে বঙ্গভবনের স্মারকলিপি দিলেন শিক্ষার্থীরা যারা না জেনে সমালোচনা করেন, তারা মানসিক রোগী: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিশু গৃহকর্মীকে  নির্যাতনের ঘটনায় দম্পতি গ্রেফতার। সাভারে চুরির অপবাদ দিয়ে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক দুই

টেকনাফে ২০ হাজার ইয়াবাসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক পিয়নকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

স্টাফ রিপোর্টারঃ
  • আপলোডের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১

কক্সবাজারের টেকনাফে ২০ হাজার ইয়াবাসহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক পিয়নকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গত বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে তাকে মাদক মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

আটক ব্যক্তির নাম আবদুর রহিম। তিনি রামু উপজেলার কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের চাকমার কাটা গ্রামের বাসিন্দা এবং টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পিয়ন হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান দৈনিক সংগ্রাম প্রতিদিন কে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

আটকের পর রহিম পুলিশকে বলেন, চোখের সামনে রিকশাওয়ালা, গাড়িচালক, দিনমজুরসহ অনেকে ইয়াবার কারবারে জড়িয়ে রাতারাতি বড়লোক বনে গেছেন। তিনিও হঠাৎ বড়লোক হওয়ার জন্য এই পথ বেছে নেন।

পুলিশ জানায়, গতকাল রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে থানা–পুলিশের একটি দল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের সামনে থেকে আবদুর রহিমকে আটক করে। এ সময় তাকে তল্লাশি করে ২০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রহিম ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেন। হঠাৎ বড়লোক হওয়ার জন্য ইয়াবা কারবারে জড়িয়ে পড়েন বলে পুলিশকে জানান তিনি।

এ বিষয়ে টেকনাফ উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা টিটু চন্দ্র শীল বলেন, দীর্ঘ ২২ বছর আবদুর রহিম টেকনাফসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চাকরি করেছেন। মাদকসহ গ্রেপ্তারের বিষয়টি জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

ওসি মো. হাফিজুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় রহিমের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে কক্সবাজারের বিজ্ঞ বিচারিক হাকিম আদালতে পাঠানো হবে।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..