সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০১:০১ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
গোপালগঞ্জে সাংবাদিক পুত্র হত্যার প্রতিবাদে ও বিচারের দাবীতে মানববন্ধন নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় লোহাগড়ায় বাড়ি-ঘর ভাঙচুর, লুটপাট গুরুতর আহত দু’জনকে ঢাকায় প্রেরণ বাগেরহাটের রামপালে পুলিশের পৃথক অভিযানে দুই মাদক কারবারি আটক ফটিকছড়ি সাংবাদিকদের সংগঠন রিপোটার্স ইউনিটির সভা অনুষ্ঠিত। রামপালে পিক-আপের ধাক্কায় চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী নিহত লোহাগড়া বাজারে দুটি মোবাইলের দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি, মোবাইলসহ অর্ধকোটি টাকার মালামাল চুরি  আনার হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার তিন আসামির আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত এম পি আনারের দেহাংশ উদ্ধারে কসাই জিহাদকে রিমান্ডের আবেদন  মোংলা থানার ওসির অপসারনের দাবীতে বাগেরহাটে মানববন্ধন চবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ২৩ তম সভাপতির দায়িত্বে জনাব মুহিউদ্দিন আহমদ।

খুলনার পাইকগাছা থানা বঙ্গবন্ধু চত্বরের জায়গা দখলের চেষ্টা; সরজমিনে ইউএনও মমতাজ বেগম

এম জালাল উদ্দীন। পাইকগাছা প্রতিনিধি খুলনা:
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

খুলনার পাইকগাছায় বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু পাইকগাছা থানার সামনে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু চত্বরের জায়গা দখলে নিচ্ছেন এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। পাশাপাশি খেলোয়াড়দের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ওসি ঘটনাটি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানান। বঙ্গবন্ধু চত্বরের ভলিবল খেলার জায়গা দখল হয়ে যাচ্ছে খবরটি জানতে পেরে তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী অফিসার মমতাজ বেগম, সহকারী কমিশনার (ভুমি) আরাফাত হোসেন, সহকারী পুলিশ সুপার (ডি সার্কেল) সাইফুল ইসলাম, থানার ওসি মোঃ জিয়াউর রহমানসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা বঙ্গবন্ধু চত্বরে উপস্থিত হন। বঙ্গবন্ধু চত্বরের ভলিবল খেলার জায়গা কেন দখল করা হচ্ছে জানতে চাইলে বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু বলেন, এ জমি আমি নিলাম সূত্রে ক্রয় করেছি। জমির সকল কাগজপত্র আমার আছে। তার কাছে জানতে চাওয়া হলো, সরকারি ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় প্রায় ৪লাখ ৭০ হাজার টাকা খরচ করে মাটি ভরাট করে বঙ্গবন্ধু চত্বর তৈরী করা হয়। সে সময় কেনো আপনি বাঁধা দেননি এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তখন প্রয়োজন মনে করিনি, এখন পাশের ব্যক্তি জমি দখলে নিয়েছে তাই প্রয়োজন মনে করে আমিও জমি দখলে নিচ্ছি। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মমতাজ বেগম সবকিছু শুনাবোঝা করে তাহার দাবীকৃত জমির কাগজপত্র যাচাই বাছাই করার জন্য সহকারী কমিশনার (ভুমি) আরাফাত হোসেনের কাছে কাগজপত্র জমা দেন। জমির কাগজপত্র যাচাই বাছাই না হওয়া পর্যন্ত ১ সপ্তাহের জন্য উক্ত জমিতে সকল প্রকার কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য তাহাকে বলা হয়েছে। এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধ শেখ শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু থানা পুলিশ ও এলাকার ভলিবল খেলোয়াড়দের কথা বিবেচনা করে জমির কিছু অংশ ছেড়ে দেওয়ার প্রস্তাব দেন। তার প্রস্তাবে সকলে সাধুবাদ জানালেও নদীর সীমানা ও জমির সঠিক মালিকানা বের করার জন্য কাগজপত্র যাচাই বাছাই করার পরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মমতাজ বেগম বলেন। তাৎক্ষনিক কাজ বন্ধ করায় ভলিবল খেলোয়াড় ও এলাকাবাসীর মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..