বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
মধুখালীতে অসহায় ও দুস্থ মানুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী লোহাগড়ায় সংখ্যালঘুদের চলাচলের রাস্তা অবরুদ্ধ করে রেখেছে একদল ভূমি দস্যু  সন্ত্রাসী  লোহাগড়ায় পুলিশের তান্ডব প্রতিবাদে  এলাকাবাসীর বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন  বাগেরহাটের মংলায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ১৫ কেজি গাঁজাসহ এক নারী মাদক কারবারি আটক নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জে হিলফুল ফুজুল যুব সংঘের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রিক বিতরণ খুলনার রূপসায় সালাম জুট মিলে আগুন, নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ১৬ টি ইউনিট , নড়াইলে ধান ক্ষেতে প্রতিক্ষণ বিমান!  রাউজান থানায় সড়ক দূর্ঘটনায় বাঁশখালীর ২ হাফেজ ইমামের মৃ*ত্যু বাগেরহাটে অসহায় হত দরিদ্র মানুষের হাতে ঈদ উপহার তুলে দিলেন জনতার এমপি শেখ সারহান নাসের তন্ময় গণমাধ্যমকর্মীদের সংগঠন বাংলাদেশ রিপোর্টার্স ইউনিটি’র উদ্যোগে ইফতার ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আফগানিস্তানের বাগরাম ঘাঁটি ছাড়ল ২০ বছর পর পশ্চিমা বাহিনী

সংগ্রাম প্রতিদিন ডেস্ক
  • আপলোডের সময় : শুক্রবার, ২ জুলাই, ২০২১

প্রায় দুই দশক পর আফগানিস্তানে নিজেদের প্রধান সামরিক ঘাঁটি থেকে বিদায় নিল যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সেনারা। শুক্রবার তারা বাগরাম বিমান ঘাঁটি খালি করে দিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন এক মার্কিন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা। খবর রয়টার্সের।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো বাহিনীর সব সদস্য বাগরাম বিমান ঘাঁটি ছেড়ে গেছে। কাবুল থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত এই ঘাঁটি থেকেই আফগানিস্তানে সকল বিমান হামলা ও কৌশলগত কার্যক্রম পরিচালনা করতে মার্কিন সামরিক বাহিনী।

ঘাঁটিটি এবার আফগান সরকারের হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে। আগামী শনিবার সেটি আনুষ্ঠানিকভাবে বুঝিয়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন এক আফগান কর্মকর্তা।

অন্য দুই মার্কিন নিরাপত্তা কর্মকর্তা রয়টার্সকে বলেছেন, আফগানিস্তানে মোতায়েন যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ সেনাই আগামী ৪ জুলাইয়ের মধ্যে বিদায় নেবে। আর অল্প কিছু সেনা মার্কিন দূতাবাসের নিরাপত্তার জন্য থেকে যাচ্ছে।

সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানিকে বলেছেন, এখন থেকে আফগানদের ভাগ্য তাদের নিজেদেরই নির্ধারণ করতে হবে।

আর আফগান প্রেসিডেন্ট বলেছেন, তাদের প্রধান কাজ হবে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবিলা করা।

এদিকে, বাগরাম ঘাঁটি থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছে তালেবান। সশস্ত্র এ গোষ্ঠীর মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ বলেছেন, আমরা এই প্রত্যাহারকে ইতিবাচক পদক্ষেপ বলে মনে করি। বিদেশি বাহিনী পুরোপুরি প্রত্যাহারের মাধ্যমে আফগানরা শান্তি ও স্থিতিশীলতার ক্ষেত্রে আরও কাছাকাছি আসতে পারবে।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর টুইন টাওয়ারসহ তালেবানের আরও দুটি হামলায় যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় তিন হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। এই হামলার জন্য আল কায়দার প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে দায়ী করা হয়।

সে সময় আফগানিস্তান শাসনকারী তালেবান ওসামা বিন লাদেনকে নিরাপত্তা দিয়েছিল এবং তাকে মার্কিন বাহিনীর হাতে হস্তান্তর করতে প্রত্যাখ্যান করে। নাইন ইলেভেন হামলার এক মাস পর আফগানিস্তানে বিমান হামলা শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র।

কিছুদিনের মধ্যে মার্কিনিদের মিত্র দেশগুলোও এতে যোগ দেয় এবং দ্রুতই তালেবানকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। তখন থেকেই যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোর জোট ন্যাটো বাহিনী আফগানিস্তানে অবস্থান করছে। কিন্তু তাতে তালেবান শক্তি অদৃশ্য হয়ে যায়নি বা তাদের শক্তি নিঃশেষও হয়নি।

বরং শুরুর ধাক্কা কাটিয়ে ধীরে ধীরে তালেবানের প্রভাব ফের বাড়তে থাকে। আফগান সরকারের পতন ঠেকাতে এবং তালেবানের হামলা প্রতিহত করতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রকে।

এ অবস্থায় সম্প্রতি আফগানিস্তান যুদ্ধে ইতি টানার ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি জানিয়েছেন, ৯/১১ হামলার দুই দশকপূর্তির আগেই আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সকল মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হবে।

সূত্র: রয়টার্স, বিবিসি

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..