শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:১৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
মধুখালীতে অসহায় ও দুস্থ মানুষের মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী লোহাগড়ায় সংখ্যালঘুদের চলাচলের রাস্তা অবরুদ্ধ করে রেখেছে একদল ভূমি দস্যু  সন্ত্রাসী  লোহাগড়ায় পুলিশের তান্ডব প্রতিবাদে  এলাকাবাসীর বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন  বাগেরহাটের মংলায় গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে ১৫ কেজি গাঁজাসহ এক নারী মাদক কারবারি আটক নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জে হিলফুল ফুজুল যুব সংঘের উদ্যোগে ঈদ সামগ্রিক বিতরণ খুলনার রূপসায় সালাম জুট মিলে আগুন, নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ১৬ টি ইউনিট , নড়াইলে ধান ক্ষেতে প্রতিক্ষণ বিমান!  রাউজান থানায় সড়ক দূর্ঘটনায় বাঁশখালীর ২ হাফেজ ইমামের মৃ*ত্যু বাগেরহাটে অসহায় হত দরিদ্র মানুষের হাতে ঈদ উপহার তুলে দিলেন জনতার এমপি শেখ সারহান নাসের তন্ময় গণমাধ্যমকর্মীদের সংগঠন বাংলাদেশ রিপোর্টার্স ইউনিটি’র উদ্যোগে ইফতার ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

টেকনাফে পাত্রী দেখতে গিয়ে অপহৃত ৩ বন্ধুর মরদেহ পাহাড় থেকে উদ্ধার

এম.এস.এ সোহেল আরমান,ষ্টাফ রিপোর্টার:
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ২৪ মে, ২০২৩

কক্সবাজারের টেকনাফে ছোট ভাইয়ের জন্য পাত্রী দেখতে গিয়ে মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত তিন বন্ধুর মৃতদেহ ঘটনার ২৬ দিন পর উদ্ধার করেছে র‍্যাব। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একজনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

নিহতরা হলেন, কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের উত্তরপাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ আলমের ছেলে জমির হোসেন ওরফে রুবেল (৩৫), কক্সবাজার পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের মধ্যম বাহারছড়া এলাকার মৃত মোহাম্মদ কবিরের ছেলে মোহাম্মদ ইউছুপ (৩৪) এবং একই পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের মোহাম্মদ ইমরান (৩৩)।বুধবার (২৪ মে) বিকেল ৫টায় টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া সংলগ্ন পাহাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এর আগে, গত ২৮ এপ্রিল টেকনাফে ছোট ভাইয়ের বিয়ের পাত্রী দেখতে যান কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের উত্তরপাড়ার মোহাম্মদ আলমের ছেলে জমির হোসেন ওরফে রুবেল (৩৫)। পেশায় তিনি লবণ ব্যবসায়ী। তার সঙ্গে টেকনাফ গিয়েছিলেন ইমরান ও ইউছুপ নামের আরও দুই বন্ধু। ওইদিন বিকেলে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের রাজারছড়া এলাকা থেকে অস্ত্রের মুখে তাদের জিম্মি করে গহীন পাহাড়ে নিয়ে যায় অজ্ঞাত একদল দুর্বৃত্ত।

পরদিন সকালে অপহৃত জমির হোসেন ওরফে রুবেলের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন থেকে কল দিয়ে মুক্তিপণ বাবদ ৩০ লাখ টাকা দাবি করে অপহরণকারীরা। পরে গহীন পাহাড়ে তাদের বেঁধে রেখে মারধর ও নির্যাতনের ভিডিও চিত্র পাঠায় স্বজনদের কাছে। আর মুক্তিপণের টাকা না দিলে জিম্মিদের প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়।

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..