শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৯:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সাতক্ষীরা কোটা আন্দোলনকারীদের সাথে ছাত্রলীগ ও মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলা। চবিতে চলছে হল সিলগালা। নড়াইলে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীর মৃত্যু  নড়াইলে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৭   সিংড়ায় মাসব্যাপী চলনবিল বৃক্ষরোপণ উৎসবে বিনামূল্যে গাছের চারা বিতরণ পুরাতন সাতক্ষীরায় জমিজমা বিরোধে ৪জনকে পিটিয়ে আহত কোটা সংস্কারের দাবিতে বঙ্গভবনের স্মারকলিপি দিলেন শিক্ষার্থীরা যারা না জেনে সমালোচনা করেন, তারা মানসিক রোগী: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিশু গৃহকর্মীকে  নির্যাতনের ঘটনায় দম্পতি গ্রেফতার। সাভারে চুরির অপবাদ দিয়ে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক দুই

মানিকগঞ্জে অবৈধ মাটির ব্যবসায় হুমকিতে জাগির ব্রিজ ও ফসলি জমি।

বাবুল আহমেদ মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি,
  • আপলোডের সময় : শনিবার, ২৮ মে, ২০২২

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার জাগির ব্রিজের নিচে এক্সকেভেটর (ভেকু) দিয়ে অবৈধভাবে মাটি কাটছে প্রভাবশালী মাটি ব্যবসায়ীরা। এতে হুমকির মুখে পরেছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১জেলায় যাতায়াতের ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জাগির সেতু ও আশপাশের বিস্তির্ণ ফসলি জমি।

অনেকেই আবার দলীয় পদ পদবি ব্যবহার করে অবৈধ মাটি ব্যবসা পরিচালনা করছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

জানা গেছে, বেশকিছু দিন ধরে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. ইসরাফিল হোসেনের নাম ভাঙিয়ে গুরুত্বপূর্ণ জাগির ব্রিজকে হুমকিতে ফেলে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি উজ্জ্বল হোসেন ভেকু দিয়ে রাতদিন মাটি কেটে ঢাকা আরিচা মহাসড়ক ব্যবহার করে ১০চাকার ড্রাম ট্রাক দিয়ে বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করছে।

অভিযোগ উঠেছে, অবৈধভাবে মাটি কেটে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে চক্রটি।

স্থানীয় হাসেম ও মনির মিয়া (ছদ্ম নাম) জানান, মাটি কাটার সাথে জড়িতরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের কিছু বলতে গেলেও নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। প্রভাবশালীদের ভয়ে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ পর্যন্ত দিতে পারেননি ভুক্তভোগী অসহায় পরিবারের সদস্যরা।

এ বিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি উজ্জ্বল হোসেন বলেন, নদী খননের মাটি ক্রয় করেছিলাম, নদী খননের কাজ শেষ হলেও আমাদের মাটি নেওয়া শেষ হয়নি। নদী খননের সেই মাটি কাটা হচ্ছে। কোন ফসলি জমির মাটি কাটছিনা।

মাটি ব্যবসার সাথে জড়িত কি’না এমন প্রশ্নের জবাবে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. ইসরাফিল হোসেন বলেন, ওগুলো নদী খননের মাটি, উপজেলা থেকে নিলামে বিক্রি করা হয়েছে। যতটুকু মাটি দেওয়ার কথা ছিল খননকারীরা ততটুকু মাটি দিতে পারেনি, চুরিচামারি করে বাইরে বিক্রি করেছে। যারা নিলামে মাটি ক্রয় করেছে তারা আমাদের দলীয় লোক। তারা নিলামকৃত মাটি কাটছে, ফসলি জমির মাটি কাটছেনা।

এ ব্যাপারে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আসমা উল হুসনা বলেন, ভেকু দিয়ে মাটি কাটা সম্পূর্ণ অবৈধ। আমার জানামতে মাটি ব্যবসায়ীরা সরকারের কাছ থেকে কোন ধরনের অনুমতি নেয়নি। যারা অবৈধমাটি ব্যবসার জড়িত, তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে

দয়া করে শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..